cplusbd

নিউজটি শেয়ার করুন

প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরে মন্দিরভিত্তিক বিবাহ প্রকল্পের ধর্মালোচনা সভা অনুষ্ঠিত

1st Image

সিপ্লাস প্রতিবেদক (২০১৯-০৭-১২ ০১:৪৮:০৪)

নগরীর প্রবর্তক ইসকন শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরে মন্দিরভিত্তিক বিবাহ প্রকল্পের কার্যক্রম উদ্বোধন উপলক্ষে ধর্মালোচনা সভা গত ৬ জুলাই সন্ধ্যায় মন্দির প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়।

বাগীশিক কেন্দ্রীয় সংসদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক পলাশ কান্তি নাথ রণী ও আগ্রাবাদ গীতায়ণ’র প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অনিল কুমার শীলের একমাত্র কন্যা সোমা শীলের মন্দিরভিত্তিক বিবাহের মধ্যদিয়ে ৫মবারের মতো প্রবর্তক শ্রীকৃষ্ণ মন্দিরে এই কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।

শুরুতেই সমস্বরে পবিত্র গীতাপাঠ করেন বাগীশিক পরিচালিত গীতা স্কুলের শিক্ষার্থীরা।

বাগীশিক কেন্দ্রীয় সভাপতি দেশপ্রিয় চৌধুরী বিনয়ের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন শ্রীশ্রী জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় প্রাক্তন সভাপতি ও রাউজান পৌর মেয়র দেবাশীষ পালিত। উদ্বোধক ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর পূজা উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাড. চন্দন তালুকদার। আশীর্বাদক ছিলেন জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক ও বাগীশিক কেন্দ্রীয় প্রধান উপদেষ্টা অ্যাড. তপন কান্তি দাশ। প্রধান বক্তা ছিলেন ধর্মতত্ত্ববিদ ও নাট্যজন সুদর্শন চক্রবর্তী।

বাগীশিক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ডা. অঞ্জন কুমার দাশের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক বিমল কান্তি দে, শিল্পপতি তিনকড়ি চক্রবর্তী, অধ্যাপক শুভ্রা দাশ, শিল্পপতি অলক দাশ, লায়ন তপন কান্তি দাশ, অধ্যাপক কৃষ্ণা দাশ, প্রকৌশলী আশুতোষ দাশ, রতন আচার্য্য, অরবিন্দ পাল অরুন, সমাজসেবী অনিতা চৌধুরী, সিনিয়র জুডিসিয়াল জজ চন্দন কান্তি নাথ, বাগীশিক কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা লায়ন দিলীপ কুমার শীল, সিনিয়র সহ-সভাপতি ঝুন্টু চৌধুরী, সহ-সভাপতি ডা. কথক দাশ, যুগ্ম সম্পাদক অ্যাড. শুভাশীষ শর্মা, সহ-সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী সুমন সেন, বাগীশিক চট্টগ্রাম মহানগর সংসদের উপদেষ্টা আশুতোষ সরকার, উত্তম মহাজন (নব), সভাপতি প্রদ্যুৎ বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী সঞ্জয় চক্রবর্তী মানিক, বাগীশিক দক্ষিণ জেলার সভাপতি অধ্যাপক শিপুল কুমার দে, সাধারণ সম্পাদক শিক্ষক রূপক শীল, উত্তর জেলার সভাপতি অমৃত লাল দে, শিবু দাশ, লায়ন গৌতম কান্তি চন্দ, অজিত কুমার শীল, নিরুপমা দেবনাথ, শিল্পী আচার্য্য প্রমুখ।

এছাড়া অনুষ্ঠানে বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ মন্দিরভিত্তিক বিবাহ প্রকল্পকে স্বাগত জানিয়ে বর-কনেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, মন্দিরভিত্তিক বিবাহ প্রকল্প একটি যুগোপযোগী পদক্ষেপ। এই প্রকল্পের মাধ্যমে মানুষ মন্দিরমুখী এবং সনাতনী সমাজ আর্থিকভাবে উপকৃত হবে। এই মহতী উদ্যোগ সমাজের সর্বস্তরে ছড়িয়ে দেয়ার কোন বিকল্প নেই।

 

1st Image