cplusbd

নিউজটি শেয়ার করুন

ভারতীয় গরুর দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে বাংলাদেশী ক্রেতারা , ঠেকাতে গিয়ে লাভ হলো বাংলাদেশেরই

1st Image

সিপ্লাস প্রতিবেদক (২০১৯-০৮-১১ ০৯:০২:২৬)

কোরবানীর ঈদে অন্যান্যবার ভারতীয় গরুর প্রতি ক্রেতাদের নজর থাকলেও এবার ভারতীয় গরুর দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে বাংলাদেশীরা।

চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গরুর হাটে দেখা যায়নি এবার ভারতীয় গরু। বরং দেশীয় গরুর দাম ক্রেতাদের নাগালের মধ্যে থাকায় সবাই দেশীয় গরু কিনতে উৎসাহিত হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ভারত  বাংলাদেশে গরু রপ্তানী বন্ধ করে দিয়ে ঠেকাতে চেয়েছিল। কিন্তু এতে হিতে বিপরীত হয়েছে।ভারত থেকে গরু আমদানী না করে  দেশীয় গরুতে কোরবানীর চাহিদা মেটানোর ফলে দেশ এক দিয়ে অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হয়েছে অন্যদিকে দেশীয় গরুর প্রতি মানুষের আগ্রহ তৈরী হয়েছে। 

ঈদুল আযহার সময় বাংলাদেশে যত পশু কোরবানী হয়, এক সময় তার একটা বড় অংশ আসতো ভারত থেকে। কিন্তু ভারতে নরেন্দ্র মোদী ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশে গরু চোরাচালান বন্ধ করতে ওই দেশের কর্তৃপক্ষ বেশ কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করে। শুরুতে বাংলাদেশের ভোক্তারা খানিকটা সমস্যায় পড়লেও অনেকে একটি সুযোগ হিসেবেও চিহ্নিত করেন। নতুন অনেক উদ্যোক্তা শুরু করেন গরুর খামার।ফলে খুব দ্রুতই পাল্টে যায় বাংলাদেশে পশু পালনের চিত্রটি।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক ডা. এ বি এম খালেদুজ্জামান  জানান, গত তিন চার বছর ধরে কোরবানির জন্য দেশীয়ভাবে উৎপাদিত পশু দিয়েই মূলত চাহিদা পূরণ করা হচ্ছে।তিনি বলেন, "ভারত থেকে একটা নির্দেশনা আছে যে, তাদের দেশ থেকে যাতে কোন পশু বাইরে না যায়। এটা আমাদের জন্যও খুবই ভালো। আমাদের ভেটেনারি মেডিকেল টিম রয়েছে যারা বাজার পর্যবেক্ষণ করছেন। তারাও বলেছে যে, ভারতীয় গরু এখনো তেমন চোখে পড়েনি।"

বাংলাদেশের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিজিবি'র দেয়া তথ্য উল্লেখ করে খালেদুজ্জামান বলেন, ২০১৩ সালে গরুর করিডোরের মাধ্যমে গরু আসে ২৩ লাখ, ২০১৪ সালে এসেছে ২১ লাখ। আর ২০১৫ সালে আসে ১৬ লাখ এবং ২০১৬ সালে ১১ লাখ। এর পরের বছর সংখ্যাটা দশ লক্ষের নিচে নেমে আসে। ওই বছর গরু আসে ৯ লাখ। গত বছর অর্থাৎ ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিল সাত লক্ষ।চলতি বছরে এই সংখ্যা একবারেই  কমে গেছে। এ বছর বৈধ পথে এসেছে মাত্র ৯২ হাজার গরু। 

তিনি বলেন, "এটা নির্দেশ করে যে, দেশীয় উৎস বাড়ছে, আমরা সরবরাহ করছি এবং বাইরে থেকে আসাও বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।"

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ বিভাগ জানাচ্ছে যে এবারে কোরবানীর জন্য গরু-মহিষ পাওয়া যাবে সংখ্যা ৪৫ লাখ ৮২ হাজারটি, আর ছাগল-ভেড়ার সংখ্যা ৭১ লাখ। অর্থাৎ সব মিলিয়ে কোরবানির জন্য প্রস্তুত এক কোটি ১৭ লক্ষ পশু।

দেশীয় বাজারে চাহিদা নির্ধারণ করা হয় গত বছর যত পশু জবাই করা হয় তার সঙ্গে ৫ শতাংশ যোগ করে। সে হিসেবে, গত বছর জবাই করা এক কোটি পাঁচ লক্ষের সঙ্গে ৫ শতাংশ যোগ করে এবারে চাহিদা ধরা হয়েছে এক কোটি ১১ লক্ষ।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা খালেদুজ্জামান জানান, দেশীয় উৎপাদন সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার পর পরই আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠক করে বিজিবিকে অনুরোধ করে সীমান্ত বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।এর ফলে  খামারিরা ভালো দাম পাবেন, মনে করছেন এই কর্মকর্তা।

ঈদুল আযহার সময়ে চামড়া শিল্প বাদে শুধু গবাদি পশু খাতেই লেনদেনের  পরিমাণ প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকা।

খালেদুজ্জামান বলেন, এটা খুবই ইতিবাচক, কারণ একদিকে যেমন দেশীয় উৎস থেকে দেশের মানুষকে নিরাপদ মাংস সরবরাহ করা যাচ্ছে, তেমনি বাইরে থেকে গরুর সাথে আসা নানা ধরণের রোগব্যাধিও কমে গেছে।ট্রান্স-বাউন্ডারি অ্যানিম্যাল ডিজিজ অর্থাৎ পশুর মাধ্যমে যেসব রোগ এক দেশ থেকে অন্য দেশে স্থানান্তরিত হয় - যেমন গরুর খুরা রোগ, অ্যান্থ্রাক্স ইত্যাদি - সেগুলোও কম দেখা যাচ্ছে বলে জানান তিনি।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর বলছে, প্রতিবছরই খামার নিবন্ধনের আওতায় খামারিদের সংখ্যা হিসাব করা হয়। এই হিসাব অনুযায়ী, এবছর খামারির সংখ্যা ৫ লাখ ৭৭ হাজার। গত বছর এ সংখ্যা ছিল ৪ লাখ ৪২ হাজার। খালেদুজ্জামান বলেন, "এক বছরেই খামারির সংখ্যা এক লাখের উপরে বেড়ে গেছে। তবে এই খামারিদের মধ্যে ডেইরি খামারও রয়েছে।"

পশুপালনে এই পরিবর্তন বাংলাদেশের অর্থনীতিতে এরই মধ্যে বেশ ইতিবাচক ভূমিকা রাখা শুরু করেছে বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা।