cplusbd

নিউজটি শেয়ার করুন

চট্টগ্রামে ঈদের প্রথম দিনে ৭০% চামড়া সংগ্রহের ধারণা

1st Image

সিপ্লাস প্রতিবেদক (২০১৯-০৮-১৩ ১১:৪১:০২)

এবার ঈদুল আযহায় কোরবানির পশুর সাড়ে ৫ লাখ পশুর চামড়ার লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে প্রথম দিনে ৭০ শতাংশ চামড়া সংগ্রহ করা হয়েছে বলে ধারণা করছেন ব্যবসায়ীরা।

সোমবার সকালে পশু কোরবানির পর দুপুর থেকে চামড়া সংগ্রহে নেমে পড়েছে মৌসুমী ব্যবসায়ী ও মধ্যসত্ত্বভোগীরা। তাদের কাছ থেকে কিনে নেবে কাঁচা চামড়ার আড়তদাররা।

চট্টগ্রাম কাঁচা চামড়া আড়তদার ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান কমিটির উপদেষ্টা মো. মুসলিম উদ্দিন  বলেন, “বিভিন্ন স্থান থেকে কাঁচা চামড়া সংগ্রহ করা শুরু করেছে আড়তদাররা।

“আশা করছি, আজ (সোমবার) রাতের মধ্যেই ৭০ শতাংশ চামড়া সংগ্রহ করে নিতে পারব। বাকিগুলো দুয়েক দিনের মধ্যে সংগ্রহ হয়ে যাবে।”

শহরে কোরবানি দেওয়া পশুর চামড়া সোমবারের মধ্যে সংগ্রহ করা গেলেও বিভিন্ন উপজেলা থেকে চামড়া আসতে দুয়েকদিন লেগে যেতে পারে বলে মনে করছেন কাঁচা চামড়ার এই ব্যবসায়ী।  

তিনি বলেন, শহরের চামড়াগুলো সংগ্রহ করে আড়তদাররা লবণ দিয়ে রাখলেও গ্রামগঞ্জের যেসব চামড়া সোমবার রাতের মধ্যে শহরে এসে পৌঁছাবে না সেসব চামড়াগুলো গ্রামেই ব্যবসায়ীরা লবন দিয়ে সংরক্ষণ করে শহরে নিয়ে আসবে।

এদিকে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে কেনা পশুর চামড়া আড়তদারদের কাছে বিক্রি করে লোকসান গুণতে হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন কয়েকজন মৌসুমী ব্যবসায়ী।

নগরীর চৌমুহনি এলাকায় আড়তদারদের কাছে চামড়া বিক্রির অপেক্ষায় থাকা মৌসুমী ব্যবসায়ী ইদ্রিস মিয়া বলেন, বন্ধুরা মিলে এলাকার বিভিন্ন বাসা থেকে প্রতিটি ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা করে বেশকিছু চামড়া কিনেছেন তারা।

তবে ট্যানারি মালিকরা এসব চামড়া কম দাম দিয়ে কিনতে চান বলে অভিযোগ তার।

এ অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে আড়তদার মুসলিম বলেন, মৌসুমী ব্যবসায়ী চামড়ার বাজার সম্পর্কে ধারণা না রেখে বেশি দামে চামড়া কিনে আড়তদারদের কাছে বেশি দামে বিক্রি করতে চায়।

“গত কয়েক বছর ধরে চামড়ার দাম সরকার থেকে নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। সেই দামেই ট্যানারি মালিকরা আমাদের কাছ থেকে চামড়া সংগ্রহ করেন।”

এবছর ঢাকায় প্রতি বর্গফুট গরুর কাঁচা চামড়া ৪৫ থেকে ৫০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা দাম নির্ধারণ করেছে সরকার।

মৌসুমী ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা চামড়া আড়তে সংগ্রহ করার পর লবণ দিয়ে অন্তত আগামী ১৫ দিন সংরক্ষণ করা হবে বলে জানিয়েছেন আড়তদাররা। তারপর বিভিন্ন ট্যানারিতে সরকার নির্ধারিত দামে বিক্রি করা হবে।

চট্টগ্রামের কাঁচা চামড়া আড়ৎদাররা ঢাকার ট্যানারি মালিকদের ওপর নির্ভরশীল। তাদের ভাষ্য, এক দশক আগে চট্টগ্রামে ২২টির মতো ট্যানারি থাকলেও বর্তমানে আছে দুটি।

এর মধ্যে ইটিপি না থাকায় বছর খানেক আগে ‘মদিনা ট্যানারি’ বন্ধ করে দিয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তর। এখন শুধু ‘রীফ লেদার’ নামে একটি ট্যানারি চট্টগ্রামে চালু আছে।

রীফ লেদার পাঁচ থেকে সাত শতাংশ চামড়া কিনলেও বাকিসব চামড়া বিক্রি করতে হয় ঢাকার ট্যানারি মালিকদের কাছে। 

চট্টগ্রামের কাঁচা চামড়া ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, ঢাকায় চামড়া বিক্রি করায় ঠিক সময়ে পাওনা না পেয়ে লোকসান গুণতে হয় তাদের।

“প্রতি বছর চট্টগ্রামের কাঁচা চামড়ার আড়তদাররা অন্তত ৩০ কোটি টাকার কাঁচা চামড়া বাকিতে বিক্রি করে ঢাকার ট্যানারিগুলোতে; যেগুলোর টাকা সঠিক সময়ে পায় না তারা”, বলেন মো. মুসলিম উদ্দিন।

গত বছর ঢাকার ট্যনারি মালিকদের কাছে প্রায় ৩০ কোটি টাকার চামড়া বিক্রি করে মাত্র তিন কোটি টাকার বকেয়া সংগ্রহ করতে পেরেছেন বলে দাবি করেন এই আড়তদার।